ঢাকাসোমবার , ১২ ডিসেম্বর ২০২২

বুগুড়ার শেরপুরে ইউএনও সানজিদা সুলতানাকে অপসারণের দাবীতে গণমাধ্যমকর্মীদের মানববন্ধন।

বেল্লাল হোসেন বাবু, রাজশাহী বিভাগীয় প্রধান :
ডিসেম্বর ১২, ২০২২ ৩:৪২ অপরাহ্ণ
Link Copied!
   
                       

 

বেল্লাল হোসেন বাবু,
রাজশাহী বিভাগীয় প্রধান :

বগুড়ার শেরপুরের উপজেলা নির্বাহী অফিসার সানজিদা সুলতানাকে অপসারণের দাবীতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদসভা করেছে স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীরা।
সোমবার(১২ ডিসেম্বর) বেলা ১১টায় শেরপুর বাসস্ট্যান্ডস্থ (ঢাকা-বগুড়া মহাসড়ক) এলাকায় সম্মিলিত সাংবাদিক জোট শেরপুর, বগুড়ার আয়োজনের এ কর্মসুচী অনুষ্ঠিত হয়।

শেরপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি, দৈনিক মানবজমিন পত্রিকার প্রতিনিধি শফিকুল ইসলাম শফিকের সভাপতিত্বে, বক্তব্য রাখেন সাপ্তাহিক তথ্যমালার সম্পাদক সুজিত বসাক,শেরপুর উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি দীপক কুমার সরকার, প্রথম আলো’র প্রতিনিধি সবুজ চৌধুরী, দৈনিক যুগান্তর প্রতিনিধি জাহাঙ্গীর ইসলাম, উত্তরবঙ্গ সাংবাদিক সংস্থার সভাপতি তাজুল ইসলাম, সাধারন সম্পাদক রবিন সরকার, শেরপুর মডেল প্রেসক্লাবের সভাপতি আব্দুল হান্নান রোকন, বাংলা দর্পণ প্রতিনিধি সাকিল মাহমুদ, প্রতিদিনের সংবাদ প্রতিনিধি নাহিদ হাসান রবিন, জবাবদিহি প্রতিনিধি আরিফুজ্জামান হীরা, আজকের পত্রিকা’র প্রতিনিধি রঞ্জন কুমার দে, আনন্দ টিভি’র প্রতিনিধি বাধন কর্মকার কৃষ্ণ, দৈনিক চাঁদনী বাজার প্রতিনিধি শুভ কুন্ড, বাংলাদেশ সমাচার প্রতিনিধি সোনাতন সরকার, সাংবাদিক আসাদুজ্জামান আশা, সোলায়মান আলী বাবু প্রমুখ।

সাংবাদিক সৌরভ অধিকারী শুভ’র সঞ্চালনায় উক্ত মানববন্ধন ও প্রতিবাদসভায় বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার কর্মরত গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত হয়ে, অনতিবিলম্বে ওই উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অপসারণ করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে দাবী জানান। অন্যথায় আরো বিভিন্ন কর্মসূচীর দেয়া হবে মর্মে ঘোষণা দেয় শেরপুর সম্মিলিত সাংবাদিক জোটের গণমাধ্যম কর্মীরা।

উল্লেখ্য, শুক্রবার (০৯ ডিসেম্বর) বিকালে শেরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সানজিদা সুলতানা উপজেলার শাহ বন্দেগী ইউনিয়নের উচরং গ্রামে আবাদি জমির উপর বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের টাওয়ার নির্মাণকাজ নিয়ে অভিযোগের তদন্তকালে শতাধিক লোকজনের উপস্থিতিতে স্থানীয় সাংবাদিকদের সম্পর্কে বিরুপ মন্তব্য করেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার এমন বিরূপ মন্তব্যের প্রেক্ষিতে হতবাক হয় এবং ইউএনও’র এহেন মন্তব্যের প্রেক্ষিতে গণমাধ্যম পেশাকে হেয় প্রতিপন্নের চেষ্টা বলে প্রতিয়মান হওয়ায় ওই কর্মকর্তাকে অপসারণের দাবীতে একাত্মতা প্রকাশ করে স্থানীয় গনমাধ্যমকর্মীরা।