ঢাকাবুধবার , ১১ জানুয়ারি ২০২৩

মণিরামপুরে সরকারী রাস্তার উপর ঘর নিমার্ণে অর্ধশত পরিবারের যাতায়াতে চরম দূর্ভোগ: উচ্ছেদের দাবী

দৈনিক প্রথম বাংলাদেশ
জানুয়ারি ১১, ২০২৩ ৯:৫৮ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!
                       

স্টাফ রিপোর্টার যশোর: মণিরামপুর উপজেলার ঢাকুরিয়া বাবু পাড়ায় যাতায়াতের এক মাত্র রাস্তার উপর বস্তি বাড়ি নিমার্ণ করার কারনে অর্ধশত পরিবার যাতায়াতে চরম দূর্ভোগ পোয়াতে হচ্ছে। দখলকৃর্তদের অন্যস্থানে জমি থাকার পরও ৬টি পরিবার জোর করে রাস্তার উপর বসবাস করে আসছে। তাদের উচ্ছেদ করার জন্য স্থানীয় চেয়ারম্যানসহ বিভিন্ন লোকজন অনেক চেষ্টা করেও কোন ফল হয়নি। তাদের উচ্ছেদ করার জন্য এলাকাবাসি প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

সরেজমিনে দেখাযায়, মণিরামপুর উপজেলার ঢাকুরিয়া বাবু পাড়ায় প্রায় অর্ধশত পরিবার বসবাস করে আসছে। তাদের পাড়ার মধ্যে যাতায়াতের এক মাত্র রাস্তার উপর দীর্ঘদিন ধরে জোর করে বসবাস করেছে মৃত শিশুবর মলি¬কের ছেলে শ্যামল মলি¬ক, শ্যামল মলি¬কের ছেলে উত্তম মলি¬ক, মৃত নিলু মন্ডলের ছেলে বাসুদেব, মৃত নিতাই মন্ডলের ছেলে খোকন মন্ডল, মৃত শিতা মন্ডলের ছেলে কাত্তিক মন্ডল ও জোতিন মন্ডলের ছেলে অশোক মন্ডল ছোট বড় ঘর নিমার্ণ করে দীর্ঘদিন ধরে কাউকে তোয়াক্কা না করে বসবাস করে আসছে। এসব পরিবার গুলোর অন্যস্থানে নিজেদের জমি ও ঘর বাড়ি থাকার পরও তারা সরকারী রাস্তার উপর অবৈধভাবে ঘর নিমার্ণ করে বসবাস করেছে। বাবু পাড়ার মধ্যে পরিবার গুলো তাদের বাড়িতে ভ্যানে কোন মালামলসহ যানবহন বাড়ির মধ্যে প্রবেশ করতে পারে না। ওই ৬টি পরিবারকে কিছু বলেল তারা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে তাদের মারার জন্য। এক পর্যায় তাদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে অর্ধশত পরিবারেরগুলো। যাতায়াতের রাস্তার উপর বাড়ি ঘর থাকার কারণে সাধারণ মানুষের চলাচলের ব্যাপক বিঘ্ন ঘটছে বলে অভিযোগ। সরকারী রাস্তার উপর বসবাসকারীদের উচ্ছেদ করার জন্য স্থানীয় সাবেক চেয়ারম্যানসহ গন্যমান্য ব্যক্তিরা অনেক চেষ্ট করেও কোন ফল হয়নি।

ঢাকুরিয়া ভুমি অফিসের নায়েব নজরুল ইসলাম জানান, ঢাকুরিয়া মৌজা ১ খতিয়ানের ১৯৬৮ দাগের ১০ শতক জমি শ্রেনী রাস্তা। এ রাস্তা দিয়ে সাধারণ মানুষ চলাচলের কোন প্রকার বিঘ্ন ঘটানো যাবে না। কেউ বাধাঁ সৃষ্টি করলে আমি স্যারকে বলে ব্যবস্থা নিবো। ঢাকুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আইযুব আলী গাজী জানান, আমি বিষয়টি শুনেছি। রাস্তার উপর কেউ বেআইন ভাবে বসবাস করতে পারবে না। যদি কোন জায়গা জমি না থাকে তাহলে সরকারী ঘরের ব্যবস্থা তাদের জন্য করা হবে। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ আলী হাসান জানান, আমি কিছু যানি না। রাস্তাা দখল করে কেউ বস্তি করতে পারবে না। তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।