ঢাকাসোমবার , ১৩ মে ২০২৪

১২ জন শিক্ষক পাশ করাতে পারেনি ২জন ছাত্রকে

দৈনিক প্রথম বাংলাদেশ
মে ১৩, ২০২৪ ৪:৪৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!
   
                       

ডিমলা , নীলফামারী প্রতিনিধি

নীলফামারীর ডিমলায় শেখ জিলাতুন্নেছা মুজিব বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এবারের এসএসসি পরীক্ষায় পাস করেনি কোনো শিক্ষার্থী। ১২ জন শিক্ষকের এ বিদ্যালয় থেকে চলতি বছর এসএসসি পরীক্ষায় মাত্র দুজন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিলেন। কিন্তু তারাও অকৃতকার্য হয়েছেন। রবিবার (১২ মে) চলতি বছরের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে। প্রকাশিত ফলাফলে ওই বিদ্যালয় থেকে পরীক্ষায় অংশ নেওয়া কোনো শিক্ষার্থীই পাস না করায় সমালোচনার ঝড় বয়ে যাচ্ছে উপজেলা জুড়ে। এ ছাড়া দুই শিক্ষার্থীর অভিভাবকরা পড়েছেন হতাশায়।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯৯ সালে উপজেলা সদরের শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতিষ্ঠার সময় থেকে বিদ্যালয়টি এমপিওভুক্ত হওয়ার আবেদন করলেও সম্ভব হয়নি। বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের নামে প্রতিষ্ঠানটি হওয়ায় সরকারিকরণের জন্য ২০২১ সালের অক্টোবর মাসে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ট্রাস্টের অনুমোদন পায়। যা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। প্রতিষ্ঠানটিতে বর্তমানে প্রধান শিক্ষকসহ ১২ জন শিক্ষক এবং তিনজন কর্মচারী রয়েছে। ২০১১ সালের জানুয়ারি মাসে প্রতিষ্ঠানটি একাডেমিক স্বীকৃতি পেয়েছে। ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত পাঠদানের অনুমতি থাকলেও শিক্ষার্থীর সংখ্যা জানাতে পারিনি উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস।

সোমবার (১৩ মে) সকাল ১১টায় প্রতিষ্ঠানে গিয়ে দেখা গেছে, প্রতিষ্ঠানের সব কক্ষ তালাবদ্ধ। দীর্ঘদিনেও খোলা হয়নি অফিস কক্ষসহ শ্রেণিকক্ষের দরজা-জানালা। মাঠে চরে বেড়াচ্ছে গরু-ছাগল। স্থানীয়দের অভিযোগ, প্রতিষ্ঠানটি বেশিরভাগ সময় বন্ধ থাকে। হঠাৎ কোনো সময় ২/১ জন শিক্ষক-কর্মচারী আসলেও কোনো ছাত্র-ছাত্রীকে প্রতিষ্ঠানে আসতে দেখিনি। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আক্তার হাবীবের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল হালিম বলেন, কোথায় থেকে নিয়ে এসে কাকে কীভাবে পরীক্ষা দিয়েছে ওরাই ভালো জানে। অকৃতকার্য হওয়ার বিষয়টি ওরাই স্পষ্ট করবে । নীলফামারী জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. হাফিজুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি আমি জানতে পেরেছি। খোঁজখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।