ঢাকাবৃহস্পতিবার , ৬ জুন ২০২৪

ডিমলায় ভুয়া সনদে দুই যুগ শিক্ষকতা, মন্ত্রণালয়ের সনদ যাচাই নোটিশ

দৈনিক প্রথম বাংলাদেশ
জুন ৬, ২০২৪ ১১:১১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!
   
                       

ডিমলা, নীলফামারী প্রতিনিধি।

ভুয়া সনদে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার আকাশকুড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকতা করে আসছিলেন এক ব্যক্তি। প্রায় দুই যুগ পর শিক্ষা সনদ যাচাইয়ের সময় দেখা যায়, তিনি সনদ জালিয়াতি করে চাকরিতে যোগ দিয়েছেন। বুধবার (৫ মে) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সহকারী সচিব সেলিম সিকদার স্বাক্ষরিত এক নোটিশে এ তথ্য জানা যায়। জাল সনদের অভিযুক্ত ওই শিক্ষকের নাম ত হ ম আবু তাহের। তিনি উপজেলার নিজপাড়া এলাকার মৃত বাহার উদ্দিন ছেলে এবং স্থানীয় আকাশকুড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ে কম্পিউটার শিক্ষক হিসেবে কর্মরত।

২৯ মে প্রকাশিত নোটিশে নিয়োগ ও এমপিও সংক্রান্ত (নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি, রেজুলেশন খাতা, টেবুলেশন শীট, সনদপত্র, এমপিও শীট) সকল প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ (মুল কপি ও ফটোকপি) আগামীকাল ৬ জুন (বৃহস্পতিবার) শুনানিতে অংশগ্রহণ করতে বলা হয়। পরে বুধবার (৪ জুন) শিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রকাশিত ভিন্ন আরেক নোটিশে আগামী রোববার (৯ জুন) শুনানিতে অংশগ্রহণ করতে বলা হয়। অনুসন্ধানে জানা গেছে, ১৯৯৪ সালে মানবিক শাখা থেকে এসএসসি, ১৯৯৭ সালে একই বিভাগে এইচএসসি ও ২০০০ সালে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বিএ পাস করে ২০০১ সালে জাতীয় বহুভাষী সাঁটলিপি প্রশিক্ষণ ও গবেষণা একাডেমী (নট্রামস) থেকে কম্পিউটার ডিপ্লোমা ডিগ্রি অর্জন করে আবু তাহের। ওই সনদ দেখিয়ে ২০০৩ সালের ১ মার্চ আকাশকুড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ে কম্পিউটার শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পান (ইনডেক্স নম্বর-১০১৮০০৭)। নিয়োগ বোর্ডে তার দেয়া কম্পিউটার ডিপ্লোমা সনদের সিরিয়াল নম্বর-১৭০৩৩, রেজিস্ট্রেশন নম্বর-১৮৯৯০ এবং ২০০১ সালের ১ জানুয়ারি থেকে শুরু হওয়া কোর্সটি সম্পন্ন করেন ওই বছরেরই ৩০ জুলাই। এতে প্রথম শ্রেণিতে কৃতকার্য হন তিনি। এসব সনদ অনুসন্ধান করতে গিয়ে সংশ্লিষ্ট দফতরের কর্মকর্তারা ৬ মাস মেয়াদী কম্পিউটার ডিপ্লোমার সনদকে জাল বলে আখ্যায়িত করেন।