ঢাকাসোমবার , ৩০ জানুয়ারি ২০২৩

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় ভিসির অনুপস্থিতিতে অব্যবস্থাপনার মধ্যে প্রায় ৩০০ আসন ফাঁকা রেখে প্রথমবর্ষের ক্লাস শুরু

দৈনিক প্রথম বাংলাদেশ
জানুয়ারি ৩০, ২০২৩ ১১:৫৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!
   
                       

নিজস্ব প্রতিনিধি:
প্রায় ৩০০ আসন ফাঁকা রেখে নানা অব্যবস্থাপনার মধ্য দিয়ে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে প্রথম বর্ষের ক্লাস শুরু হয়েছে। গুটি কয়েক বিভাগ ব্যতীত ক্লাস শুরু হওয়ার সময় না জানানোসহ নানা অব্যবস্থাপনার জন্য অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা। কেউ কেউ তার বিভাগের সামনে দুই-তিন ঘন্টা দাড়িয়ে ছিলেন। আজ রবিবার প্রথম বর্ষের ক্লাস শুরু হওয়ার দিনেও পরিষ্কার করা হয় নি ক্যাম্পাস, বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের শুরুর দিনেই অপরিচ্ছন্ন ক্যাম্পাস দেখে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন অনেকে।
এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ২২টি বিভাগে একযোগে ক্লাস শুরু হওয়ার দিনে ক্যাম্পাসে উপস্থিত ছিলেন না বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো: হাসিবুর রশীদ। কাউকে উপাচার্যের দায়িত্বও দিয়ে যান নি তিনি। এমনকি বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী মোহাম্মদ আলমগীর চৌধুরীও ছিলেন না ক্যাম্পাসে। রবিবার দুপুর ২টার দিকে উপাচার্য ও রেজিস্ট্রার দপ্তরে গিয়ে জানা যায়, উপাচার্য প্রফেসর হাসিবুর রশীদ গত সপ্তাহ থেকে ঢাকায় অবস্থান করছেন এবং রেজিস্ট্রার দীর্ঘদিন যাবৎ ছুটিতে। গত ২৮ তারিখে ছুটি শেষ হলেও রেজিস্ট্রার রবিবার দুপুর ২টা পর্যন্ত অফিসে আসেন নি। এ বিষয়ে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে উপাচার্য প্রফেসর হাসিবুর রশীদ বলেন, আমি জরুরি কাজে ঢাকায় অবস্থান করছি। কাজ শেষে ফিরবো। কাউকে উপাচার্যের দায়িত্ব দিয়ে গেছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, কাউকে দায়িত্ব প্রদানের ক্ষমতা আমার নেই। প্রথমবর্ষের ক্লাস শুরুর অব্যবস্থাপনার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জনসংযোগ দপ্তরে কথা বলার পরামর্শ দেন। একাধিক অভিভাবক জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম দিনেই এমন অব্যবস্থাপনা সত্যিই দৃষ্টিকটু দেখায়। আমরা এটা আশা করিনি।
জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট এক হাজার তিনশত ৯৫ টি আসন রয়েছে। গত ২৫ জানুয়ারি পর্যন্ত ভর্তি হয়েছে এক হাজার ১০৩ জন শিক্ষার্থী। ফলে ২২ বিভাগের মধ্যে ১৬টিতে এখনো দুইশত ৯২টি আসন ফাঁকা রয়েছে। এর মধ্যে বাংলা বিভাগে ৭৫ আসনের ১৬টি, ইংরেজি বিভাগে ৬৫ আসনের তিনটি, ইতিহাস ও প্রতœতত্ত¡ বিভাগে ৭৫ আসনের ২০টি, সমাজবিজ্ঞান বিভাগে ৬৫ আসনের ২০টি, জেন্ডার এন্ড ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের ৬৫ আসনের ৫৩টি, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ৫০টির মধ্যে ১৯টি, লোকপ্রশাসন বিভাগে ৬৫ আসনের ছয়টি, ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগে ৬০টির মধ্যে পাঁচটি, মার্কেটিং বিভাগে ৬০টি আসনের পাঁচটি, ফাইন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিভাগে ৬০টির মধ্যে একটি, ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেমস্ বিভাগের ৬০টির মধ্যে পাঁচটি, গণিত বিভাগে ৭০টি আসনের ৩৯টি, পরিসংখ্যান বিভাগের ৭০টির মধ্যে ৩৭টি, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ৭০টির মধ্যে ২২টি, ভূগোল ও পরিবেশবিজ্ঞান বিভাগের ৬০টির মধ্যে ১৯টি এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগে ৬০টির মধ্যে ফাঁকা রয়েছে ২২টি আসন। বিভাগগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ক্লাস শুরুর দিনেও ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদেও মধ্যে বেশিরভাগ অনুপস্থিত ছিলেন। অথচ বিশ^বিদ্যালয়ের ভিসিপন্থী শিক্ষক-কর্মকর্তারা কিছুদিন আগে প্রচার করেছিলেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে প্রায় শতভাগ আসনে শিক্ষার্থী ভর্তি হয়েছে। এমনকি গুচ্ছভুক্ত বিশ^বিদ্যালয়গুলোর মধ্যে বেগম রোকেয়া বিশ^বিদ্যালয় এবারের ভর্তিতে প্রথম স্থান অর্জন করেছে।
এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে, ভিসিপন্থী শিক্ষক বলে পরিচিত লোকপ্রশাসন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও বহিরাঙ্গণ কার্যক্রমের পরিচালক সাব্বীর আহমেদ চৌধুরী বলেন, আমরা যে সময় এটা প্রচার করেছিলাম তখন শতভাগ ভর্তি ছিল কিন্তু পরে মাইগ্রেশন হয়ে অন্য বিশ^বিদ্যালয়ে চলে গেছে। বর্তমানে বেরোবির পজিশন কত সে বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি তা জানেন না বলে জানান।
প্রথমবর্ষে ক্লাস শুরুর দিনে বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসনের অব্যবস্থাপনা বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে জনসংযোগ দপ্তরের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ আলী বলেন, ভর্তি প্রক্রিয়া চলার পাশাপাশি আনুষ্ঠানিক ক্লাস শুরু করা হলো। ভর্তি প্রক্রিয়া শেষ হলে কেন্দ্রিয়ভাবে নবীন বরণ অনুষ্ঠান করা হবে।