ঢাকারবিবার , ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

কুবির ছাত্রীহলে টানা দুইরাত গ্যাস লিক, তবুও গঠিত হয়নি তদন্ত কমিটি

দৈনিক প্রথম বাংলাদেশ
ফেব্রুয়ারি ৫, ২০২৩ ৪:৫২ অপরাহ্ণ
Link Copied!
   
                       

কুবি প্রতিনিধি:

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) শেখ হাসিনা হলে পরপর দুইরাত গ্যাস লিক হলেও গঠিত হয়নি কোনো তদন্ত কমিটি, এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি সুনির্দিষ্ট কারণ। শুক্রবার মধ্যরাতে গ্যাস লিকেজের পর শনিবার(৫ ফেব্রুয়ারী) মধ্যরাতে দ্বিতীয় দফায় হলটিতে গ্যাস লিকেজের ঘটনা ঘটেছে। জানা যায়, শুক্রবার মধ্যরাতে গ্যাস লিকেজের পরদিন সকালে সমাধান করার পর একইদিনের ব্যবধানে মধ্যরাতে আবারও গ্যাসের তীব্র গন্ধ ছড়িয়ে পড়লে দ্বিতীয় দফায় আতঙ্কিত হয়ে যান আবাসিক শিক্ষার্থীরা। ঘটনাস্থলে তৎক্ষনাৎ শিক্ষকরা উপস্থিত হয়ে গ্যাসের মেইন লাইন বন্ধ করান। টানা দুই দিন গ্যাস লিকেজের বিষয়টি নিশ্চিত হলেও সুনির্দিষ্টভাবে এই বিষয়ে এখনও কোন তদন্ত কমিটি গঠন করেনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

নিজের নিরাপত্তার বিষয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে হলের এক আবাসিক শিক্ষার্থী কানিজ ফাতেমা মিকা বলেন,’ মাত্র ৪ দিন হলো হলে উঠেছি। এর মধ্যে টানা দুইরাত ঠিক মতো ঘুমাতে পারিনি। বারবার গ্যাস লিকেজ হচ্ছে, প্রতিটা মূহুর্তে প্রাণভয়ে থাকছি। এরপরও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এখনও পর্যন্ত কোন তদন্ত কমিটি করা হলো না। আমরা এখনও জানি না সমস্যা গ্যাসের লাইনের ত্রুটির কারণে হচ্ছে নাকি এখানে অন্যকোন বিষয় জড়িত।’ এ ব্যাপারে হল প্রভোস্ট মো. সাহেদুর রহমান বলেন, ‘ হলের গ্যাসের লাইনের কাজটি বাখরাবাদের একটি টিম করেছে, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কোন টিম করেনি যার জন্য মূলত গ্যাস লিকেজের আসল কারণ উদঘাটন হয়নি। আজকে বাখরাবাদের টিমটি আসবে, যদি যাচাই করার পর দেখা যায় তাদের কাজের ত্রুটির কারণে গ্যাসের এই সমস্যা দেখা দেয়নি তখন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে আসলে কাদের গাফিলতির জন্য এ সমস্যা হচ্ছে সেটা বের করার জন্য। ‘

টানা দুই দিন গ্যাস লিকেজের পরও তদন্ত কমিটি গঠিত না হওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর কাজী ওমর সিদ্দিকী বলেন,’ তদন্ত কমিটি গঠন করার নিয়ম রয়েছে যদি সন্দেহজনক কোন ঘটনা ঘটে তাহলে তদন্ত কমিটি গঠিত হবে। আমাদেরকে এক্সপার্টরা বলেছেন গ্যাস লাইনে সমস্যার জন্য লিকেজটা হয়েছে৷ এখানে তদন্ত কমিটি গঠন করার মতো সন্ধেহ জনক কিছু নেই। ‘ উল্লেখ্য, শুক্রবার রাতের গ্যাস লাইন লিকেজের সমস্যা পরদিন সকালে মেরামতের পর আবার একই দিনে গভীর রাতে গ্যাস লাইনে লিকেজ দেখা যায়।